February 24, 2020, 5:54 am

লোকসানের ভারে ন্যুব্জ বেসরকারি বিমান সংস্থাগুলো

একসময় নানা অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনার অভিযোগ ছিল বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের বিরুদ্ধে। লোকসানের বোঝায় ন্যুব্জ ছিল দেশের রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থাটি। ধারাবাহিক ভর্তুকি ও সরকারের নানা উদ্যোগে ২০১৪-১৫ অর্থবছর থেকে ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করে বিমান। ওই বছর লোকসান কাটিয়ে ৪৭ কোটি টাকা মুনাফা অর্জন করে সংস্থাটি। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৬-১৭ অর্থবছরে বিমানের মুনাফার পরিমাণ বেড়ে দাঁড়ায় ৩২৪ কোটি টাকা।

বিমানের সেবার মান বিশ্বমানে উন্নীত করতে সরকারের পক্ষ থেকে নেয়া হচ্ছে নানা উদ্যোগ। ইতোমধ্যে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসে গত আগস্টে যুক্ত হয়েছে প্রথম ড্রিমলাইনার ‘আকাশবীণা’। আসছে নভেম্বরে যুক্ত হচ্ছে দ্বিতীয় ড্রিমলাইনার। এছাড়া বিমানের ক্যাজুয়াল শ্রমিকদের চাকরি স্থায়ীকরণসহ নেয়া হচ্ছে নানা উদ্যোগ।

রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থাটির ধারাবাহিক উন্নয়নে এতো উদ্যোগ নেয়া হলেও আকাশ পথে উন্নত যাত্রীসেবা নিশ্চিত করে আসা বেসরকারি খাতের এয়ারলাইনসগুলো বর্তমানে লোকসানের ভারে ন্যুব্জ হয়ে পড়ছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, বেসরকারি খাতের এয়ারলাইনসের যাত্রা শুরু হয় নব্বইয়ের দশকের শেষভাগে। আকাশ পরিবহন সেবায় বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনতে নেয়া হয় নানা উদ্যোগ। রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান থেকে যখন মানুষ মুখ ফিরিয়ে নেয় ঠিক তখন মানুষকে আকাশ পথে চলায় অভ্যস্ত করতে বিরাট ভূমিকা রাখে বেসরকারি এ খাত।

বৈরী ও প্রতিকূল পরিবেশের মধ্য দিয়ে অগ্রসরমান বেসরকারি এ খাত একপর্যায়ে ‘শ্বেতহস্তী’ পুষতে পুষতে বাণিজ্যিকভাবে লোকসানের মুখে পড়তে থাকে। বিশ্ববাজারের তুলনায় বাংলাদেশে জেট ফুয়েলের মূল্য ও ল্যান্ডিং চার্জ বেশি হওয়ায় লোকসানের ভারে ন্যুব্জ হয়ে পড়া ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ, জিএমজি এয়ারলাইনস, বেস্ট এয়ার, এ্যারো বেঙ্গল এয়ারলাইনস, এয়ার পারাবাত মুখ থুবড়ে পড়ে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2018 banglatimes71.Com
Design & Developed BY Banglatimes71.com